গ্রিসে যাওয়ার সুযোগ | গ্রিসে কতজন কর্মচারী নেবেন | গ্রিসে কোন কোন খাতে লোক নেবে |

 

গ্রিসে যাওয়ার সুযোগ | গ্রিসে কতজন কর্মচারী নেবেন | গ্রিসে কোন কোন খাতে লোক নেবে |

গ্রিসে যাওয়ার সুযোগ

গ্রিসে বর্তমানে বাংলাদেশ থেকে মানুষ যেতে পারবে। গ্রিসে বৈধভাবে যাওয়ার সুবর্ণ সুযোগ থাকছে। যারা যাবে তারা পাঁচ বছর অস্থায়ী কাজের সুবর্ণ সুযোগ পাবেন। গ্রিসে কাজের জন্য অনেকেই যেয়ে থাকেন। গ্রিসে পড়াশোনা করার জন্য যেয়ে থাকেন কৃষিকাজের জন্য যেয়ে থাকে। আজকে আমরা আপনার সঙ্গে আলোচনা করব গ্রীস সম্পর্কে বিস্তারিত। গ্রিসে কিভাবে যেতে হয়, গ্রিসে কি কি কাজে রয়েছে। গ্রিসে কাজের বেতন। গ্রিসে যাওয়ার সুবর্ণ সুযোগ। গ্রিসে প্রতিবছর কত কর্মী যেতে পারবেন ইত্যাদি বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব। আশা করি আপনারা এ কনটেন্ট থেকে আপনার সকল প্রশ্নের উত্তর পাবেন ইনশাআল্লাহ।

গ্রিসে কতজন কর্মচারী নেবেন

আপনারা অনেকেই অনেক দেশে কাজের জন্য যেতে চান। তেমনি অনেকেই গ্রিসে যাওয়ার কথা ভাবছেন। এখন বাংলাদেশ থেকে গ্রিসে যাওয়া খুবই সহজ। জানা গেছে বাংলাদেশ থেকে প্রতিবছর গ্রীস এ যেতে পারবেন 4000 নতুন কর্মী। প্রথমত গ্রীস সরকার কর্মী নিয়ে থাকবেন কৃষি ক্ষেত্রের জন্য। ধাপে ধাপে আরও বেশিসংখ্যক কর্মী তারা নেবেন বলে আশা করা যাচ্ছে। প্রতি বছর বাংলাদেশ থেকে 4000 নতুন কর্মী গ্রীস এ যেতে পারবেন।

গ্রিসে কোন কোন খাতে লোক নেবে

আমরা অনেকেই অনেক দেশে কাজের জন্য যেয়ে থাকি। আমরা বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন কাজের জন্য যায়। অনেকেই গ্রীস এ যেতে চান। গ্রিসে প্রতিবছর বাংলাদেশ থেকে লোক নেওয়া হয় 4000 জন। গ্রিসে প্রথমত কৃষিকাজের জন্য লোক নেবেন বলে জানিয়েছেন গ্রীস সরকার। তবে আশা করা যাচ্ছে ধাপে ধাপে অনেক লোক নিয়ে থাকবেন। গ্রীস সরকার জানান ধাপে ধাপে তারা চাহিদা অনুযায়ী অন্যান্য ক্ষেত্রেও লোক নিয়ে থাকবেন। অন্যান্য ক্ষেত্রে লোক নেওয়ার পাশাপাশি লোক অধিক নেওয়ার চাহিদা বাড়বে।

গ্রিসে বৈধ ভাবে যাওয়ার সুযোগ

বাংলাদেশ থেকে গ্রিসে বৈধ ভাবে যাওয়ার সুযোগ করে দিয়েছেন সরকার। বাংলাদেশ এবং গ্রিসের মধ্যে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। সেখানে বলা হয় গ্রীস সরকার নিজেদের খরচে বাংলাদেশ থেকে কর্মী নেবেন। এতে গ্রিসে পাঠানোর নামে দালালদের দৌরাত্ম্য কমে আসবে। গ্রিসে বৈধ ভাবে যেতে যারা আগ্রহী তারা কোনো ভাবেই যেন দালালদের খপ্পরে না পড়ে সেই বিষয়ে সতর্ক থাকার জন্য আহ্বান জানান।

গ্রিসে বৈধ ভাবে যেতে হলে কি প্রয়োজন

অনেকেই বিদেশ যেতে চান। কিন্তু অনেকে ভয় করেন তারা ঠিকঠাক ভাবে বিদেশে পৌঁছাতে পারবে কিনা তা নিয়ে। বিদেশে বৈধভাবে যেতে হলে অনেক কিছু প্রয়োজন হয়। সব সময় বিদেশে যাওয়ার পূর্বে দালালদের খপ্পরে থেকে বেঁচে থাকতে হবে। আপনারা অনেকেই জিজ্ঞেস করে থাকেন গ্রিসে বৈধ ভাবে যেতে হলে কি কি প্রয়োজন তার সম্পর্কে। আজকে আমরা আপনাদের সঙ্গে আলোচনা করব গ্রিসে বৈধ ভাবে যেতে হলে যা যা প্রয়োজন তা নিয়ে বিস্তারিত। কিভাবে বৈধভাবে বিদেশ যেতে হবে তা সংক্রান্ত কিছু রূপরেখা তুলে ধরা হয়েছে। কিভাবে বৈধভাবে বিদেশ যেতে হবে তা সংক্রান্ত কিছু রূপরেখা তুলে ধরা হয়েছে তা নিচে দেওয়া হল।


  • যারা গ্রিসের যেতে আগ্রহী তাদের ট্রাভেল ডকুমেন্টস।

  • বৈধ ওয়ার্ক কনটার্স।

  • অসুস্থতার জন্য হলে ইন্স্যুরেন্সের কাগজপত্র জমা দিতে হবে।


এসকল ফি গুলো প্রদান করতে হবে যারা বাংলাদেশ থেকে গ্রীস এ যেতে চাই তাদের। গ্রিসে বাংলাদেশ কর্মীরা কাজ করার জন্য সুযোগ পাবেন বলে তারা জানিয়েছেন। তারা জানিয়েছেন বাংলাদেশ কর্মীরা অনেক পরিশ্রমী কিন্তু তারা ভুল ভিসায় এসে অনেক সমস্যার সম্মুখীন হয়। এখন বাংলাদেশ থেকে গ্রিসে বৈধভাবে যাওয়ার সুযোগ থাকছে।

গ্রিসে সম্পূর্ন ফ্রি ভাবে যাওয়ার সুযোগ

আমরা অনেক দেশে যেতে চাই। সকল দেশে যাওয়ার জন্য আমাদের কিছু কাজ করতে হয়। এবার বাংলাদেশ থেকে গ্রিসের সম্পন্ন ফ্রি ভাবে যাওয়া যাবে। এ সুযোগটি আমরা সবাই কাজে লাগাবো যারা বাইরে কাজ করার জন্য যেতে চাও। যেখানে প্রত্যেক বছর বাংলাদেশ থেকে গ্রিস কাজের জন্য 4 হাজার এবার শ্রমিক নেবে এবং শ্রমিক সম্পূর্ণভাবে গভমেন্ট এর মাধ্যমে নেওয়া হবে।


প্রথমে তারা পাঁচ বছরে ভিসা পাবে। প্রথম অবস্থাতে তাদের পাঁচ বছরের ভিসা দেবে গভমেন্ট কিন্তু কথা আছে পাঁচ বছরের মধ্যে তারা কত বছর কত মাস বছর কাজ করতে পারবে। এইরকম কিন্তু একটা প্রশ্ন থেকে যায়। প্রত্যেক বছর 9 মাস গ্রিসে কাজ করতে পারবে। প্রথম একপর্যায়ে বাংলাদেশ থেকে জনশক্তি রপ্তানি করছেন গ্রিসে শুধুমাত্র এগ্রিকালচার ভিসা দিয়ে তাদের দেশে নিচ্ছে আপনারা প্রত্যেকেই চেষ্টা করেন।


কারণ হচ্ছে আপনার অনেক দেশে আসতে চান লাইক রোমানিয়া, বুলগেরিয়া, স্লোভাকিয়া থেকে হাজার গুন ভালো গ্রীস। প্রথমত ইউরোপে দ্বিতীয়তঃ সেনজেনভুক্ত কান্ট্রি আপনি চাইলে যেকোন সময় খুব সহজে গ্রীস দেশ থেকে অন্য দেশে মুভ করতে পারবেন। আপনি বাংলাদেশ থেকে গ্রীস ফ্রী পাঁচ বছরের জন্য যেতে পারছেন। এটা একটি শ্রমিকের জন্য অনেক বড় একটি সুযোগ। গ্রিসে যারা অবৈধভাবে রয়েছে তাদেরকে গ্রীস সরকার 5 বছরের জন্য বৈধ করে নিবেন। তবে এর সংখ্যাটি নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে 15000 কর্মীদের বৈধ করে নেবে। এটাও বাংলাদেশি কর্মীদের জন্য একটি বড় সুযোগ।

গ্রিসে কাজের বেতন কত

আপনারা অনেকেই গ্রীস এ যেতে চান। গ্রিসে যাওয়ার পদ্ধতি কেমন সে সম্পর্কে অনেকের প্রশ্ন করে থাকেন। সবচেয়ে বেশি প্রশ্ন করে থাকেন গ্রিসে কাজের বেতন কত এ সম্পর্কে। আজকে আমরা এ সম্পর্কে আলোচনা করব। গ্রিসে যারা ভিলেজ সাইটে কাজ করে থাকেন তাদের সর্বনিম্ন বেতন হয়ে থাকে 15 ইউরো। আগে বেতন একটু বেশি ছিল কিন্তু বাঙালী অধিক হয়ে যাওয়ার কারণে বেতন কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। কাজের উপর ভিত্তি করে ভিলেজ সাইডে সর্বোচ্চ আয় করা হয় 30 ইউরো। এটা প্রতি দিনকার হিসাব বলা হলো।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ